(CLICK ON CAPTION/LINK/POSTING BELOW TO ENLARGE & READ)

Tuesday, March 19, 2013

এখনও উত্তর ২৪ পরগনায় ঘরছাড়া ১৪২১ ঘরছাড়াদের ফেরাতে আন্দোলন শুরু


এখনও উত্তর ২৪ পরগনায় ঘরছাড়া ১৪২১ 
ঘরছাড়াদের ফেরাতে আন্দোলন শুরু

নিজস্ব সংবাদদাতা

বারসত, ১৮ই মার্চ—২০০৮ সালের পঞ্চায়েত নির্বাচনের পর থেকে উত্তর ২৪ পরগনা জেলার বিস্তীর্ণ গ্রামাঞ্চল জুড়ে তৃণমূলীদের নেতৃত্বে সন্ত্রাস শুরু হয়। খুনী, ডাকাত, সমাজবিরোধীদের ব্যবহার করে বামফ্রন্ট কর্মীদের বিশেষত সি পি আই (এম) কর্মীদের উপর আক্রমণ শুরু হয়। বামফ্রন্ট কর্মী‍দের ঘরবাড়ি ও এলাকা ‍‌ ছেড়ে চলে যেতে হয়। ২০১১ সালের সাধারণ নির্বাচনের পর আক্রমণ আরো বাড়ে। ঘরছাড়াদের ঘরে ফেরানোর এবং শান্তিতে বসবাস করার দাবি জানিয়ে সোমবার বারাসতে সি পি আই (এম)-র উত্তর ২৪ পরগনা জেলা দপ্তরে এক সাংবাদিক সম্মেলন হয়। সাংবাদিক সম্মেলনে অংশ নেন সি পি আই (এম) রাজ্য কমিটির সদস্য তড়িৎবরণ তোপদার ও অমিতাভ নন্দী। সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তরে নেতৃবৃন্দ বলেন বিগত বাইশ মাস যাবৎ সন্ত্রাসের পরিবেশের মধ্যে পার্টির রাজনৈতিক কার্যক্রম পরিচালনা করে শান্তি ও গণতন্ত্র রক্ষার জন্য কর্মসূচী নেওয়া হয়েছে। জেলার গ্রামাঞ্চলে বিশেষ করে শাসন অঞ্চল-সহ বারাসত ব্লক-২’এর বিস্তীর্ণ অঞ্চল হাড়োয়া, মিনাখাঁ ব্লক, রাজারহাট ব্লকের মহিষবাথান, ঠাকদারি ও অন্যান্য কিছু অঞ্চলে আক্রমণ এমন পর্যায়ে পৌঁছায় যে বহু কর্মী-সমর্থকদের এলাকা ছেড়ে যেতে বাধ্য হন। অনেককে তাঁদের কৃষিজমি থেকেও উচ্ছেদ করা হয়। হাড়োয়াতে শিক্ষক আলাউদ্দিন মোল্লাকে বাড়ি ফেরার পথে খুন করে তৃণমূলের ঘাতকবাহিনী। জেলাজুড়ে আরও ১৮ জন কর্মী খুন হন। বহুবার জেলা প্রশাসনের কাছে ডেপুটেশন, ডি এস দপ্তরে অবস্থান কর্মসূচী নেওয়া হয়। ১৯৫৪ জন ঘরছাড়াদের তালিকা দেওয়া হয় ডি এম এবং এস পি-র কাছে। এখনো ১৪২১ জন কর্মী-সমর্থক এমনকি নির্বাচিত সদস্যরাও ঘরে ফিরতে পারছেন না। আলাউদ্দিন মোল্লার খুনের কিনারা আজও হয়নি। প্রকাশ্যে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে দুষ্কৃতিরা। বারাসত ব্লক-১’এ গ্রাম পঞ্চায়েতে প্রার্থী হ‍‌তে চাওয়া মহিলাকে গ্যাংরেপের হুমকি দিচ্ছে তৃণমূলীরা। ঘরছাড়াদের একটা বৃহৎ অংশ ভোটার। নেতৃবৃন্দ জানান বারে বারে যেমন প্রশাসনকে বলা, তেমনি মানুষকে সাথে নিয়ে মিছিল, মিটিং, বিক্ষোভ সমাবেশের মধ্যে দিয়ে মুখ্যমন্ত্রী, শাসকদল, প্রশাসনকে ও জনগণের মধ্যে এই বার্তা পৌঁছে দিতে হবে, ঘরছাড়াদের ঘরে ফেরাতেই হবে। আগামী ৩১শে মার্চের মধ্যে যদি ঘরছাড়ারা ঘরে না ফেরে, তবে বৃহত্তর আন্দোলনে যাওয়া ছাড়া পথ নেই। এদিন নেতৃবৃন্দ কিছু কর্মসূচী ঘোষণা করেন। তা হলে আগামী ২৪শে মার্চ বামফ্রন্টের নেতৃত্বে নিউটাউন রবীন্দ্রতীর্থ থেকে বেরিয়ে বলাকা আবাসন টালিপাড়া মহিষগেট হয়ে নিউটাউন থানা এবং পুলিস কমিশনারকে ডেপুটেশন দেওয়া হবে। ২৯শে মার্চ হাড়োয়ার শালিপুরে বামফ্রন্টের সমাবেশ হবে। ৩১শে মার্চ বেলেঘাটা কাচকল থেকে খড়িবাড়ি হয়ে খামারপাড়ায় শেষ হবে মিছিল।

ঘরছাড়াদের ফেরাতে ডেপুটেশন : ঘরছাড়াদের ফেরানোর দাবিতে ডেপুটেশন দিলো উত্তর ২৪ পরগনা বামফ্রন্ট। সোমবার জেলা বামফ্রন্টের এক প্রতিনিধিদল ডেপুটেশন দেয় এ ডি এম (জি) সৌরভ পাহাড়ির কাছে। প্রতিনিধি দলে ছিলেন সি পি আই (এম) নেতা অমিতাভ নন্দী, ফরোয়ার্ড ব্লক নেতা হরিপদ বিশ্বাস, সঞ্জীব চট্টোপাধ্যায়, সি পি আই-র অমলেন্দু দেবনাথ এবং আর এস পি-র বরুণ চৌধুরী ও পঙ্কজ দাস। প্রতিনিধিরা জেলার গ্রামাঞ্চলের বিশেষ করে শাসন অঞ্চল-সহ বারাসত ব্লক-২, হাড়োয়া, মিনাখাঁ, রাজারহাট ব্লকের মহিষবাথান, থাকদাড়ি ও অন্যান্য অঞ্চলের ঘরছাড়া ১৪২১ জনের নামের তালিকা-সহ স্মারকলিপি জমা দেন। এবং ঘরছাড়ারা যাতে অবিলম্বে তাদের ঘরে ফিরতে পারে প্রশাসন তার ব্যবস্থা করুক।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে এদিন সি পি আই (এম) নেতা অমিতাভ নন্দী বলেন, দ্রুত প্রশাসন কোনো ব্যবস্থা না নিলে আগামীদিনে জেলাশাসকের ভবনে বিক্ষোভ কর্মসূচী করবে জেলা বামফ্রন্ট।


No comments:

Post a Comment